রাজস্ব, অনুদান, বিল ও ভাউচারের ব্যাখ্যা | পাবলিক ওয়ার্কস অ্যাকাউন্টস | অ্যাকাউন্টিং থিউরি

রাজস্ব, অনুদান, বিল ও ভাউচারের ব্যাখ্যা | পাবলিক ওয়ার্কস অ্যাকাউন্টস, বলিক ওয়ার্কস অ্যাকাউন্টস বিভাগ হিসাব সংরক্ষণের একটি শাখা। যেখানে পাবলিক ওয়ার্কস ডিপার্টমেন্টের বিভিন্ন কার্য সম্পাদনের অনুকুলে ঠিকাদারদের বিলের চেক ইস্যু, সরকারি ট্রেজারির অনুকুলে চেক প্রদান, মাস শেষে বা নির্দিষ্ট সময় শেষে রাজস্ব জাতীয় অর্থ ট্রেজারিতে জমা, মাসিক হিসাব প্রতিবেদন তৈরি ও তা মহা হিসাবরক্ষকের দপ্তরে প্রেরণ করা হয়।

রাজস্ব, অনুদান, বিল ও ভাউচারের ব্যাখ্যা | পাবলিক ওয়ার্কস অ্যাকাউন্টস | অ্যাকাউন্টিং থিউরি 

 

রাজস্ব, অনুদান, বিল ও ভাউচারের ব্যাখ্যা | পাবলিক ওয়ার্কস অ্যাকাউন্টস | অ্যাকাউন্টিং থিউরি

 

(১) রাজস্ব (Revenue) :

রাজস্ব বলতে একটি নির্দিষ্ট আর্থিক বছরের জন্য সরকারের প্রাক্কলিত বাজেটে দেশের অভ্যন্ত রীণ বিভিন্ন উৎস থেকে প্রাপ্ত সম্ভাব্য আয়সমূহের সমষ্টিকে বুঝায়। সরকার জনসাধারণের উপর কর ও ভ্যাট আরোপ, সরকারি সম্পত্তি বিক্রি, জরিমানা ও ক্ষতিপূরণ আদায় এবং বাণিজ্যিক আয়ের মাধ্যমে এ রাজস্ব সংগ্রহ করে থাকে। 

 

অ্যাকাউন্টিং থিউরি এন্ড প্র্যাকটিস সূচিপত্র
আমাদের গুগল নিউজে ফলো করুন

 

(২) অনুদান (Grant) :

অনুদান বলতে দেশের জনস্বার্থে উন্নয়নমূলক কাজের জন্য ব্যয়িত অর্থ। অর্থাৎ যে সমস্ত ব্যয় কোনো একক ব্যক্তির জন্য করা হয় না বরং রাষ্ট্রের সকল শ্রেণির জনসাধারণের স্বার্থে ব্যয়িত হয়। পরিশেষে বলা যায় যে, রাজস্ব হলো দেশের অভ্যন্তরীণ সরকারি বিভিন্ন উৎস থেকে আয় যা নির্দিষ্ট বা অনির্দিষ্ট থাকতে পারে। পক্ষান্তরে, অনুদান হলো একটি নির্দিষ্ট জনকল্যাণমূলক কাজের জন্য বাজেট বরাদ্দকৃত ব্যয় । 

(৩) বিল (Bill) :

বিল হলো কোনো সম্পাদিত কার্যের অথবা মালামাল সরবরাহের অনুকূলে পাওনা অর্থের দাবিকৃত একটি দলিল। বিলে কার্যের বিবরণ, সরবরাহকৃত মালের পরিমাণ, হার, দেয় টাকার পরিমাণ, চুক্তির নম্বর, নির্দেশনার নম্বর ইত্যাদি উল্লেখ থাকে। 

 

রাজস্ব, অনুদান, বিল ও ভাউচারের ব্যাখ্যা | পাবলিক ওয়ার্কস অ্যাকাউন্টস | অ্যাকাউন্টিং থিউরি

 

(৪) ভাউচার (Voucher) :

প্রতিষ্ঠানের কোনো লেনদেনের সত্যতা ও যথার্থতার প্রমাণস্বরূপ লিখিত দলিলকে ভাউচার বলে। অন্য ভাষায় বলা যায়, হিসেবের বইয়ে লিখিত লেনদেনের দলিলগত সাক্ষ্যই প্রমাণ পত্র বা ভাউচার লিখিত দলিল যা পরিশোধকৃত টাকার প্রমাণ পত্র হিসেবে রেকর্ডভুক্ত থাকে। যে কোনো দায় পরিশোধ করার জন্য প্রথমে বিল তৈরি করতে হয় এবং বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর দাবীকৃত বিলের টাকা পরিশোধ করা হয়। বিলের টাকা পরিশোধের পর বিলটি ভাউচার হিসেবে গণ্য হয় এবং যথাযথভাবে রেকর্ড করা হয়।

আরও পড়ুনঃ

Leave a Comment